সারাদেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৪ ইউনিয়নের ১০টিতেই আ.লীগের পরাজয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৪ ইউনিয়নের ১০টিতেই আ.লীগের পরাজয়

ষষ্ঠ ধাপে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা ও নবীনগর উপজেলার ১৪ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের বেসরকারিভাবে ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

সোমবার (৩১ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জেলা নির্বাচন অফিস জানিয়েছেন, ফলাফল অনুযায়ী নবীনগর উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন নির্বাচনের ৪টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, ১টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও দুটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচিত আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা হলেন, বিটঘর ইউপিতে মেহেদী জাফর (নৌকা), কাইতলা দক্ষিণ ইউপিতে মো. শওকত আলী (নৌকা), বড়াইল ইউপিতে মো. জাকির হোসেন (নৌকা) ও বিদ্যাকুট ইউপিতে জাকারুল হক (নৌকা)।

নির্বাচিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, কৃষ্ণনগর ইউপিতে আমজাদ হোসেন (চশমা) ও শিবপুর ইউপিতে এম.আর মজিব (আনারস) এবং নাটঘর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আক্তারুজ্জামান (মোটরসাইকেল)।

এদিকে কসবা উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে দলীয় প্রতীক ছাড়া নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে বিজয়ীরা হলেন, মেহারী ইউপিতে মোশারফ হোসেন (টেবিলফ্যান), বাদৈর ইউপিতে শিপন আহম্মদ ভূইয়া (চশমা), গোপীনাথপুর ইউপিতে মো. মিজানুর রহমান (টেবিল ফ্যান), বিনাউটি ইউপিতে বেদন খান (ঘোড়া), কায়েমপুর ইউপিতে ইকতিয়ার আলম রনি (আনারস), বায়েক ইউপিতে মো. বিল্লাল হোসেন (অটোরিকশা) ও কসবা পশ্চিম ইউপিতে মো. মানিক মিয়া (অটোরিকশা)।

এর আগে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত দুই উপজেলার ১৪ ইউপিতে ইভিএম-এ শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। তবে ইভিএম-এ ভোটগ্রহণ হওয়ায় বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটাররা নানান বিড়ম্বনার শিকার হয়েছে।

কসবা উপজেলার ৭টি ও নবীনগর উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন মোট ১৪টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৯৫ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৪৯ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ৪৫২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.