আন্তর্জাতিক

ডাকাতির টাকা দিয়ে প্রেমিকাকে আই ফোন, শ্বাশুড়িকে ফ্ল্যাট উপহার

ডাকাতির টাকা দিয়ে প্রেমিকাকে আই ফোন, শ্বাশুড়িকে ফ্ল্যাট উপহার

কোটি টাকা ডাকাতির ঘটনায় সম্প্রতি পুলিশ ভিকি নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে। পরে জানা যায়, ডাকাতির টাকা দিয়ে ওই ব্যক্তি তার প্রেমিকাকে আইফোন এবং হবু শাশুড়িকে ফ্ল্যাট কিনে দিয়েছেন। ওই ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট থেকে লক্ষাধিক টাকা লেনদেনের অভিযোগ পাওয়া গেছে বলেও জানায় পুলিশ।

সম্প্রতি এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া বেলিলিয়াস রোড শিল্পাঞ্চলে। এ ঘটনায় ভিকির পাশাপাশি হেমন্ত মিশ্র ও কার্তিক রাম নামে আরও দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে এই ঘটনায় জড়িত আরও দুইজন এখনও পলাতক রয়েছে। তাদের মধ্যে এক ব্যক্তির নাম বোম্বে রাজেশ বলে জানায় পুলিশ।

পুলিশ জানায়, ডাকাতির সঙ্গে জড়িতরা সবাই কুখ্যাত অপরাধী। এর আগেও তাদের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে গত ছয়মাস তারা কোথায় ছিল এবং কী করেছে এ বিষয়ে কিছুই জানে না পুলিশ। গত ছয় মাস তাদের কোনো অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের খবরও পুলিশের কাছে আসেনি।

গত মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টা বেলিলিয়াস রোডে একটি লোহার সামগ্রীর দোকান থেকে ১ কোটি টাকা ডাকাতির ঘটনা ঘটে। তবে ডাকাতি করে পালানোর সময় যানজটে আটকে পড়ে তাদের গাড়ি। এ সময় দিনেদুপুরে রাস্তা দিয়ে পিস্তল উঁচিয়ে ডাকাতদের পালানোর ঘটনায় এলাকাবাসীর মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ে সেই ভিডিও। তদন্তে নামার পর ওই দোকানের কাজে জড়িত তিন ব্যক্তিকে দক্ষিণ ২৪ পরগনা থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে।

সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে পুলিশ জানতে পারে, ঘটনার সময় ঘটনাস্থলের আশপাশেই ছিলেন ওই তিন ব্যক্তি। এর পরেই তাদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। এ সময় পুলিশ জানতে পারে, ডাকাতি হওয়া দোকানের ব্যবসায়ী সুনীল শর্মার সঙ্গে তাদের পরিচয় মূলত কালো টাকা সাদা করার সূত্রেই। তাদের মধ্যে প্রায় ছয় মাস ধরে যোগাযোগ। বেশির ভাগ সময় হোটেলে বসে বা ফোনে কথা হতো তাদের। ওই ব্যবসায়ীর অফিসেও প্রতিদিন যাতায়াত ছিল ওই তিন ব্যক্তির। ব্যবসায় আয় কর যাতে কম দিতে হয়। মূলত, সেই ব্যবস্থাই করে দিতেন ওই তিন জন। এ ছাড়া টাকা হস্তান্তরের ক্ষেত্রেও সুনীলকে সাহায্য করতেন তারা। বিনিময়ে কমিশনও পেতেন।

ওই দালালদের জিজ্ঞাসাবাদ করেই ঘটনায় জড়িত ডাকাতদের সম্পর্কে জানতে পেরে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, ডাকাতির পর টাকা ভাগ-বাটোয়ারা শেষে প্রত্যেকেই নিজের বাড়ি চলে যায়। ওই টাকা দিয়েই প্রেমিকা মহিমা সিংহকে আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স কিনে দিয়েছেন ভিকি। মহিমাকে আইফোন দেওয়ার পাশাপাশি মহিমার মাকেও একটি ফ্ল্যাট কিনে দেওয়ার জন্য সাড়ে চার লাখ টাকা পাঠিয়েছেন ভিকি।

পলাতক দুই ডাকাতের খোঁজে এখনও বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। বিশেষ করে পুলিশের নজরে রয়েছে বোম্বে রাজেশ। কারণ, ডাকাতি নিয়ে মূলত তার সঙ্গেই দালালদের চুক্তি হয়েছিল। ওই চুক্তিমতে রাজেশ বাকিদের একত্র করে ডাকাতি করে। তদন্তের স্বার্থেই তাকে নিজেদের হেফাজতে নিতে চায় পুলিশ। তার খোঁজ পেতে ভিকি, কার্তিক আর হেমন্তের সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে বলে জানায় পুলিশ।

সূত্র : আনন্দবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *